পাপন ক্ষোভ ঝাড়লেন মাহমুদউল্লাহর উপর

গত জুলাইয়ে জিম্বাবুয়ে সফরে একমাত্র টেস্টে দেড়শ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলার পর পরই সাদা জার্সির দলের খেলা থেকে অবসর নেবেন বলে জানান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

বিষয়টি নিয়ে সে সময় দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে শোরগোল পড়ে যায়। বিস্মিত ও হতাশ হন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও।

বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমে ক্ষোভও প্রকাশ করেন।

তবে দেশে ফিরে নিজের অবসরের সিদ্ধান্তের বিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন মাহমুদউল্লাহ। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণা দেননি।

অস্ট্রেলিয়া সিরিজ শেষে এখন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন।

বুধবার বিকেলে বিসিবি সভাপতিকে পেয়ে সেই প্রশ্ন উঠল – মাহমুদউল্লাহ কি টেস্ট থেকে অবসর নিয়েছেন? নেবেন নিশ্চিত?

জবাব দিতে গিয়ে ফের ক্ষোভ ঝাড়লেন বিসিবি বস পাপন।

বললেন, ‘না রিয়াদ অবসর নেয়নি। এখনও সামনাসামনি কিছু বলেনি যে, সে টেস্টে নেই। একটার পর একটা সিরিজ চলছে। বায়োবাবলে থাকে সে। তাই রিয়াদের সাথে এ নিয়ে বসার সুযোগ হচ্ছে না। ওকে নিয়ে বসতে হবে। সবার সামনে হয় না। এটা এখনও ঝুলে আছে।

বোর্ডের সাথে রিয়াদের কোনো দূরত্ব বাড়েনি। তামিমের এই টি-টোয়েন্টি না খেলার ব্যাপারটা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে অনেকদিন ধরে। নিউজিল্যান্ডে টি-টোয়েন্টি খেলবে না জানিয়েছিল। জিম্বাবুয়েতেও জানিয়েছিল। অস্ট্রেলিয়া এলো, তখনও জানিয়েছিল। কিন্তু রিয়াদের ব্যাপারটা অপ্রত্যাশিত।’

এরপর মাহমুদউল্লাহর উপর ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে পাপন বলেন, ‘রিয়াদকে আমার বাসায় নিয়ে বসেছিলাম। বারবার জিজ্ঞেস করেছিলাম , টেস্টে সে আগ্রহী কি না। সে আমাকে প্রতিবার বলেছে, খুব আগ্রহী টেস্ট খেলতে। আমরা বলেছিলাম কে কোন সংস্করণ খেলবে লিখিত দাও।

রিয়াদ লিখে দিয়েছে, টেস্ট খেলবে যদি দলে নেওয়া হয়। ফলে তাকে জিম্বাবুয়ের টেস্টে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। আর এত কিছুর পর সে যখন ঘোষণাটা দিল, এটা একেবারে অপ্রত্যাশিত ছিল।

তামিমের সঙ্গে এটা মেলাতে পারছি না। তামিমেরটা আমাদের জানা ছিল। রিয়াদেরটা অপ্রত্যাশিত। এভাবে উচিত নয়। এভাবে আকস্মিক কোনো খেলোয়াড় ঘোষণা দিতে পারে না।’