হেলিকপ্টার করে হাওরে গেলেন জায়েদ খান

কিশোরগঞ্জের সুবিস্তৃত হাওরে এখন অবাধ জলরাশি। মানুষ ছুটে যাচ্ছে জলভেজা বাতাসে একটু শরীর ভেজাবে বলে। প্রকৃতির অনিন্দ্য সুন্দর এই হাওরে মানুষের মনকে আরেকটু রাঙানোর প্রয়াস রাত্রিযাপন।

কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে হাওরের মধ্যে নির্মিত হয়েছে রিসোর্ট। হাওরের মাঝে বসেই প্রকৃতির খুব কাছাকাছি সময় কাটানোর জন্য নির্মাণ করা এই রিসোর্টের নাম প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট। আজ আনুষ্ঠানিকভাবে এই রিসোর্টের দরজা খুলে যাচ্ছে।

মিঠামইন উপজেলার আগড়া ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে ৩০ একর জায়গায় গড়ে তোলা হয়েছে এই রিসোর্ট। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে নাম দেওয়া হয়েছে প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট। রিসোর্টে ১০টি কটেজ রয়েছে। ৪০টি পরিবার একসঙ্গে থাকতে পারবেন।

হাওরের বুকে এই রিসোর্টের যাত্রা শুরুর অনুষ্ঠানে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে উড়ে গিয়েছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। শুক্রবার সকালে ঢাকা থেকে একটি বেসরকারি হেলিকপ্টারে করে কিশোরগঞ্জের মিঠামইন হাওরে নামেন তিনি।

এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন জনপ্রিয় খল অভিনেতা মিশা সওদাগর ও মনোয়ার হোসেন ডিপজল। এ ছাড়া ছিলেন চিত্রনায়ক রুবেল ও দুজন উঠতি চিত্রনায়িকা।

এত দিন কিশোরগঞ্জ শহরে থেকেই হাওর ঘুরতে হতো ভ্রমণপিপাসুদের। দিনে গিয়ে আবার দিনে ফিরতে হতো। পর্যটকদের থাকার ব্যবস্থা ছিল না। এসব কথা মাথায় রেখে মিঠামইন উপজেলার আগড়া ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে ৩০ একর জায়গায় দ্বীপের মতো গড়ে তোলা হয়েছে প্রেসিডেন্ট রিসোর্ট।

জানা গেছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিতেই ঢাকা থেকে চলচ্চিত্রের এই দলটি হেলিকপ্টারে করে উড়ে যায় হাওরাঞ্চলে। তাদের হাত ধরেই হাওরের বুকে যাত্রা শুরু করছে একমাত্র রিসোর্ট।